রেকর্ড হচ্ছে আপনার ডিভাইসের নিকটবর্তী সকল কথোপকথন1 !

ডিভাইসের নিকটবর্তী সকল কথা রেকর্ড করতে পারে
ডিভাইসের নিকটবর্তী সকল কথা রেকর্ড করতে পারে এসকল সিস্টেম অ্যাপ

বিজ্ঞানের এ যুগে মানুষ প্রতি নিয়ত তথ্য প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল হচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির উপর এ নির্ভরশীলতা ব্যক্তি জীবনকে সহজতর করলেও ব্যক্তি গোপনীয়তা দিন দিন কমে যাচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির অনেক সুবিধা নিয়ে বড় বড় টেক জাইন্টরা আপনার ফোনের সম্পুর্ণ এক্স্যাস পেয়ে যাচ্ছে যা দ্বারা তারা নিজেদের ব্যবসার বিস্তার ঘটাচ্ছে।

যেভাবে আপনার ডিভাইসের সামনে বলা কথা বার্তা তাদের কাছে যায়ঃ

Google, Microsoft, Apple কিংবা Amazon এর মত টেক জায়েন্টরা বর্তমানে Google voice assistance, siri, cortana কিংবা Alexa এর মত কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা সমৃদ্ধ সফটওয়্যার সকল ডিভাইসে আগে থেকেই ইনস্টল করা থাকে। ফোন চালানোর সুবিধার্থে আমরা যখন এসব অ্যাপ কে এক্সেস দেই, তখন এইসব সফটওয়্যার আমাদের প্রতি মুহুর্তে ফোনের সামনে বলা কথা শুনতে পারে। আমরা যখনি ফোন কিংবা কম্পিউটার এর সামনে “Hey google /ok google”, “Hey siri”, Alexa কিংবা Cortana বলি তখন সাথে সাথেই অ্যাপ গুলো আমাদের রেসপন্স দিয়ে থাকে। যা দ্বারা স্পষ্টই বোঝা যায় যে আমাদের ডিভাইসের সামনে বলা প্রতিটি কথা এসব অ্যাপ শুনতে পারে।

আপনার কথা রেকর্ড করে এসব কোম্পানিগুলো যা করেনঃ

মাইক্রোসফট, গুগল কিংবা অ্যামাজনের বিশাল ক্লাউড সার্ভিস রয়েছে যাতে তারা বিভিন্ন কোম্পানিকে স্টোরেজ ভাড়া দিয়ে থাকে। এছাড়াও তারা নিজেদের ইউজারদের সকল তথ্য এতে সংরক্ষন করে। তারা তাদের সফটয়্যারের মাধ্যমে প্রাপ্ত সকল ডাটা নিজেদের ব্যবসায়িক সুবির্থে কাজে লাগায়। তারা পার্সোনালাইজড বিজ্ঞাপণ দেখার যার মুল ভিত্তি আপনার সার্চ রেকর্ড ও ডিভাইসের সামনে কথপোকথন হয়ে থাকে। উদাহারণস্বরুপঃ আপনার কথার মাধ্যমে যদি সফটওয়্যার কোনো নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সম্পর্কে জানতে পারে, তাহলে আপনার ডিভাইস চালানোর সময় আপনার কাছে সেই পন্যের বিজ্ঞাপণ আসবে। আবার তারা আপনার তথ্য অন্য কোম্পানির কাছে বিক্রিও করতে পারে।  এ বিষয়টি সম্পর্কে জেরা করা হলে গুগুলের সিইও আদালতকে জানান যে, গ্রাহকদের অনুমতি নিয়েই তারা সকল তথ্য সংরক্ষন করে। তাদের কাছে এসব তথ্যের এক্সেস আছে অর্থাৎ তারা চাইলেই এসব তথ্য ব্যবহার করতে পারেন।

অনেক সময় ডাটা লিকেজ এর কারনে আপনার তথ্য অনাকংক্ষিত জায়গায় চলে যেতে পারে যা আপনি কখনই সমর্থন করবেন না। তাই ডিভাইস ব্যবহার ও সফটওয়্যারের এর এক্সেস দেওয়ার ক্ষেত্রে খুবই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আপনি যদি এসব ভয়েস এসিস্টেন্ট এর এক্সেস এখনি বন্ধ করতে চান, তাহলে আপনার মোবাইলের সেটিংসে গিয়ে সহজেই এক্সেস বন্ধ করে দিতে পারবেন। নিজে সচেতন থাকুন এবং অন্যকে সচেতন রাখুন।

 

আরো পড়ুন : পেগাসাস স্পাইওয়্যার কিভাবে আপনার তথ্য নিয়ন্ত্রন করে 

আপনার মন্তব্য জানাবেন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন